- রোববার ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

| ফাল্গুন ১৩ ১৪৩০ -

Tokyo Bangla News || টোকিও বাংলা নিউজ

জাপানের প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রণে ‘রাইজিং সান’ সম্মাননা গ্রহণ করলেন আবুল কালাম আজাদ

প্রকাশিত: ১৯:০৪, ১০ মে ২০২২

জাপানের প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রণে ‘রাইজিং সান’ সম্মাননা গ্রহণ করলেন আবুল কালাম আজাদ

জাপানের প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদার আমন্ত্রণে ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরামের (সিভিএফ) প্রেসিডেন্সির বিশেষ দূত মোঃ আবুল কালাম আজাদ অর্ডার অফ দ্য রাইজিং সান, গোল্ড অ্যান্ড সিলভার স্টার পুরস্কার গ্রহন করলেন।আজ ১০ মে জাপানের ইম্পেরিয়াল প্যালেসে এই পুরস্কার প্রদানের অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।

জাপানের সম্রাট দীর্ঘমেয়াদে বিশেষত মেধাবী সেবার স্বীকৃতিস্বরূপ যোগ্য ব্যক্তিদেরকে দ্য অর্ডার অফ দ্য রাইজিং সান পুরস্কারে ভূষিত করেন।অর্ডার অফ দ্য ক্রিসান্থেমামের বেশিরভাগ ক্ষেত্রে রাজনীতিবিদদের দেয়া হয়। অর্ডার অব রাইজিং সান হচ্ছে জাপানের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পুরস্কার।এটি ১৮৭৫ সালে জাপানের মেইজি সম্রাট অর্ডার অব দ্য রাইজিং সান পুরস্কার প্রবর্তন করেন।

জাপান-বাংলাদেশ বন্ধুত্বে জনাব আজাদ অপরিসীম অবদান রেখেছেন - যার স্বীকৃতিস্বরূপ জাপান সরকার তাকে এই সম্মাননা প্রদানের সিদ্ধান্ত নেয় । জনাব আজাদ ২০১০ সালে বিদ্যুৎ সচিব থাকাকালীন JICA এর বিশেষ সহযোগিতা নিয়ে বিদ্যুৎ সেক্টরে মাস্টার প্ল্যান প্রণয়ন করেন।  

২০১৪ থেকে ২০১৯ পর্যন্ত জাপান-বাংলাদেশ পাবলিক-প্রাইভেট ইকোনমিক ডায়ালগ (PPED)-এ জাপানের অর্থনীতি, বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয়ের সচিবের সাথে সহ-সভাপতিত্ব করেন । এই সময়ে টোকিও ও ঢাকায় অনুষ্ঠিত একাধিক বৈঠকে বাংলাদেশ ও জাপানের পিপিইডির সরকারি ও বেসরকারি কর্মকর্তারা যোগ দেন। তার নেতৃত্বের কারণে, PPED সরকারী ও বেসরকারী বিনিয়োগ বাড়ায় এবং জাপান বাংলাদেশকে বিনিয়োগের জন্য উপযুক্ত স্থান হিসেবে স্বীকৃতি দেয়।

মহেশখালী মাতারবাড়ী ইন্টিগ্রেটেড ডেভেলপমেন্ট ইনিশিয়েটিভ (MIDI) এর উন্নয়ন ও বাস্তবায়নে জনাব আজাদের ভূমিকা ছিল অপরিসীম। ২০১৮ সালে MIDI গঠিত হওয়ার পর, MIDI-এর চেয়ারম্যান হিসেবে তাঁর ভূমিকা ছিল বিদ্যুৎ, জ্বালানী, গভীর-সমুদ্র বন্দর এবং অর্থনৈতিক অঞ্চলে জাপানের বিনিয়োগের আরও বাড়ানো। তিনি নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার এলাকার জাপানিজ ইকোনমিক জোন বাস্তবায়নের নেতৃত্ব দেন। জনাব আজাদ জুলাই ২০১৬ এর হলি আর্টিজান হামলার পর জাপানের সাথে বিশ্বাস পুনর্স্থাপনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন। 

জনাব আজাদ বাংলাদেশের বিদ্যুৎ সচিব এবং পরবর্তীতে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সচিব, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব এবং পরে এসডিজি বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক হিসেবে দায়িত্বপালনকালীন সময়ে বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন। বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনাব আজাদকে ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরাম প্রেসিডেন্সির বিশেষ দূত হিসেবে মনোনয়ন  দিয়েছেন। বর্তমানে, তিনি ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের বায়োডাইভারসিটি বিষয়ক গ্লোবাল কমিশনের কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

আবুল কালাম আজাদ ছাড়াও জাপানের এই সর্বোচ্চ সম্মাননা ‘রাইজিং সান’ পুরস্কার পাচ্ছেন আরও দুই বাংলাদেশি। তাদের মধ্যে জাপান-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (জেবিসিসিআই) সাবেক সভাপতি, হক’স বে অটোমোবাইলসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুল হক ‘অর্ডার অব দ্য রাইজিং সান, গোল্ড রেস উইথ রোজেট’ পুরস্কার পাচ্ছেন।

ইয়ামাগাটা-ঢাকা ফ্রেন্ডশিপ জেনারেল হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. এখলাছুর রহমান পাচ্ছেন ‘অর্ডার অব দ্য রাইজিং সান, গোল্ড অ্যান্ড সিলভার রেজ’।