- শনিবার ২০ এপ্রিল ২০২৪

| বৈশাখ ৬ ১৪৩১ -

Tokyo Bangla News || টোকিও বাংলা নিউজ

ফুটবলের সব পর্যায় থেকে রাশিয়াকে নিষিদ্ধ করলো  ফিফা আর উয়েফা

ষ্টাফ রিপোর্টার

প্রকাশিত: ০৯:২৪, ১ মার্চ ২০২২

ফুটবলের সব পর্যায় থেকে রাশিয়াকে নিষিদ্ধ করলো  ফিফা আর উয়েফা

ইউক্রেনে আক্রমণের পর থেকেই রাশিয়ার ওপর চটেছে ইউরোপীয় দেশগুলো। ফিফা-উয়েফার মতো সংস্থাগুলোও আভাস দিচ্ছিল বড় শাস্তির। আগের দিন ‘রাশিয়া’ নাম, পতাকা ও জাতীয় সংগীত ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল ফিফা আর উয়েফা।

তারা অবশেষে নিষিদ্ধই ঘোষণা করল। শুধু রাশিয়া জাতীয় দলই নয়, রুশ সব ক্লাবকেও সব ধরনের প্রতিযোগিতা থেকে নিষিদ্ধ করেছে সংস্থা দুটো।

এক বিবৃতিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে ফিফা ও উয়েফা। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘ইউক্রেনের আক্রান্ত মানুষজনের সঙ্গে ফুটবল পুরোপুরি একাত্মতা পোষণ করছে।’

তাতে আরও বলা হয়, ‘দুই সংস্থার সভাপতি আশা করছেন, শিগগিরই পরিস্থিতিতে বড় উন্নতি আসবে। তাহলে ফুটবল আবারও জনগণের মাঝে ঐক্য ও শান্তির প্রতীক হয়ে উঠতে পারবে।’

দুই পক্ষের এই সিদ্ধান্তের ফলে বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব থেকে নিষিদ্ধ হলো রাশিয়া, চলতি মাসে বিশ্বকাপের প্লে-অফ সেমিফাইনালে পোল্যান্ডের মুখোমুখি হওয়ার কথা ছিল। নিষেধাজ্ঞার ফলে তা আর হচ্ছে না এখন।

শুধু রাশিয়াই নয়, দেশটির ক্লাবগুলোকেও বের করে দেওয়া হয়েছে মহাদেশীয় প্রতিযোগিতা থেকে। ইউরোপার শেষ ষোলোয় রুশ ক্লাব স্পার্টাক মস্কোর মুখোমুখি হওয়ার কথা জার্মান ক্লাব রাজেন বলস্পোর্ট লাইপজিগের বিপক্ষে। এখন উয়েফা থেকে রুশ ক্লাবটি নিষিদ্ধ হওয়ায় ইউরোপার শেষ ষোলোয় ওয়াকওভার নিয়ে সরাসরি কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে যাবে লাইপজিগ।

এদিকে উয়েফা রাশিয়ার বিখ্যাত প্রতিষ্ঠান গ্যাজপ্রোমের সঙ্গ স্পনসরশিপ চুক্তি ইতি টানার ঘোষণা দিয়েছে। উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ, উয়েফা জাতীয় দলের প্রতিযোগিতা এবং উয়েফা ইউরো ২০২৪-সহ সব চুক্তি এই সিদ্ধান্তের আওতায় পড়বে।

এর আগে সোমবার আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি (আইওসি) সব আন্তর্জাতিক ক্রীড়া সংগঠনের কাছে আরজি জানিয়েছিল, রাশিয়া ও বেলারুশের খেলোয়াড়, কর্মকর্তা এবং দলগুলোকে যত দূর সম্ভব যেন বহিষ্কার করা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতেই রাশিয়াকে নির্বাসিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ফিফা ও উয়েফা।

এর আগে রাশিয়াকে নির্বাসনের সিদ্ধান্ত নেয়নি ফিফা। তারা বলেছিল, রাশিয়াকে তাদের সব ফুটবল ম্যাচ নিরপেক্ষ দেশের ব্যানারে খেলতে হবে। তারা নিজেদের জাতীয় পতাকা এবং জাতীয় সংগীত ব্যবহার করতে পারবে না। কিন্তু ফিফার এই সিদ্ধান্ত প্রায় কোনো দেশই মানতে পারেনি।

ইংল্যান্ড সাফ জানিয়ে দিয়েছিল, রাশিয়ার বিপক্ষে কোনো আন্তর্জাতিক ফুটবল ম্যাচ খেলবে না তারা। ইংল্যান্ডের এই ঘোষণার আগেই রাশিয়ার সঙ্গে না খেলার কথা জানিয়েছিল পোল্যান্ড, সুইডেন ও চেক প্রজাতন্ত্র।

ফিফা কীভাবে রাশিয়াকে বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব খেলার অনুমতি দিচ্ছে, তা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছিলেন পোল্যান্ডের ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি। ফুটবল থেকে রাশিয়াকে নির্বাসিত করার দাবিও করেছিল পোল্যান্ড।

পোল্যান্ড খেলতে অস্বীকার করার পর চেক প্রজাতন্ত্র এবং সুইডেনও জানিয়ে দিয়েছিল, ফিফার নির্দেশ মেনে নেওয়া তাদের পক্ষে সম্ভব নয়। এই তিন দেশই একসঙ্গে ফিফাকে অনুরোধ করেছিল, রাশিয়াকে প্রতিযোগিতা থেকেই বহিষ্কার করার জন্য। শেষ পর্যন্ত সে পথেই হাঁটল ফিফা ও উয়েফা।

আর এ/আর এ এস